বন্যার্ত ও গ্রামবাসীদের ঈদ উপহার: ফের টক অবদি টাউনে নুরপুর মুন্সী পরিবার

0
306

লিড-নিউজ দক্ষিনাঞ্চল অফিস :: একদিকে করোনার প্রভাব, অন্যদিকে বন্যা। এই দুটি প্রাকৃতিক দুর্যোগের মাঝেই এবছর সারাদেশে পালিত হল পবিত্র ঈদুল আজহা বা কোরবানি ঈদ। সেই দিক থেকে ফরিদপুরের বিভিন্ন জেলায় বন্যাপরিস্থি বেশ নাজুক অবস্থায় রয়েছে। বন্যার পানি কিছুটা কমতে থাকলেও পদ্মা,আরিয়াল খা, কুমার ও মধুমতি নদীর পানি বইছে বিপদসীমার উপর দিয়ে।

কিন্ত ফরিদপুরের দক্ষ ও মানবিক জেলা প্রশাসকের দৃষ্টি যেমনি ছিল বানভাসীদের প্রতি তেমনি মুসলমান সম্প্রদায়ের ঈদকে সামনে রেখে তিনি জেলা সদর এলাকার সকল বানভাসি পরিবারের প্রতি ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় উপজেলার বিভিন্ন বানভাসী পরিবারের প্রতি খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসারগন।

অন্রুপভাবে বন্যার্তদের ত্রাণ ও গ্রামবাসীদের ঈদ উপহার দিয়ে ফের টক অবদি টাউনে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পৌরসভার নুরপুর মুন্সী পরিবার। তারা ভাঙ্গা উপজেলার নাসিরাবাদ ইউনিয়নের সাধারণ জনগনের ভাগ্যবিড়ম্বনা বলে খ্যাত আড়িয়ালখাঁ নদীর তীরবর্তী শতধীক বন্যার্ত পরিবারের মাঝে ঈদ সামগী ত্রাণ বিতরণ করেন ভাঙ্গা উপজেলা প্রশাসনের সরকারী সাহায্যের পাশাপাশি।

এছাড়া ঈদের আগের দিন মরহুম বাবা ও মায়ের নামে নুরপুরসহ(নিজ গ্রামের) প্রতিটি ঘরে ও পার্শ্ববর্তী শত শত পরিবারের মাঝে পোলার চাল, সেমাই, চিনি, শুকনো কৌটা দুধ, মাংসসহ বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন মুন্সী পরিবার থেকে। বন্যার্তদের ত্রাণ ও গ্রামবাসীদের ঈদ উপহার দিয়ে ফের টক অবদি টাউনে ভাঙ্গার নুরপুর মুন্সী পরিবার।

প্রসঙ্গত কারনে উল্লেখ্য,করোনার প্রভাবের শুরু থেকে ভাঙ্গার এই পরিবারটি ঘোষণা করেন তাদের গ্রামের সকল মানুষের দায়িত্ব তার নিলেন। করোনা ও লকডাউন এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে না আসার আগ পর্যন্ত গ্রামের প্রতিটি মানুষের ঘরে ঘরে তাদের পক্ষ থেকে খাবার পৌঁছে দিবে। ঘোষণা অনুযায়ী তারা সেই ভাবেই নিজেদের দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন করেন। তাদের ত্রাণ সাহায্যে পেয়ে করোনার দুঃসময়ে নুরপুর গ্রামের কোন সাধারণ মানুষ অসহায় অবস্থায় কেউ দিন যাপন করেছে বলে এমন অভিযোগ ছিল না বলে জানান গ্রামের মুরুব্বী আচমত মিয়া। তিনি আরও জানান, একদিকে সরকারি সাহায্য অন্যদিকে মুন্সী বাড়ির ত্রাণ পেয়ে গ্রামের মানুষেরা করোনার বিশেষ দুঃসময়ে কোন কষ্টের ভিতরে ছিলনা বলে দাবী করেন তিনি।

এবিষয়ে জানতে চাইলে লিড-নিউজ প্রতিবেদককে মুন্সী পরিবারের সন্তান এনায়েত মুন্সী জানান, প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানুষের কোন হাত নেই। এটা প্রকৃতির ইচ্ছে। কিন্ত আমাদের সরকার করোনার শুরুতে যেভাবে সাধারণ মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। সরকার এখনও করোনা ভাইরাস ও বন্যার্তদের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, মানবিক চেতনার থেকে আমরা মুন্সী পরিবার গ্রামের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের সুখ দুখটা কিছুটা ভাগ করে নিয়েছি মাত্র। আগামী দিনেও অসহায় মানুষের পাশে তারা থাকবেন বলেও জানান এনায়েত মুন্সী।

print

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here