ভাঙ্গায় দখল হওয়া জমি ফেরত দাবীতে নারী উন্নয়ন সমিতির মানববন্ধন

0
145

নিজস্ব প্রতিবেদক ফরিদপুর :: ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলার কালামৃধা ইউনিয়নের কালামৃধা বাজার সংলগ্ন দক্ষিন কালামৃধা মহিলা উন্নয়ন সমিতির নামে বরাদ্দকৃত ২০ শতাংশ জমি একই সমিতির সাবেক সভানেত্রীর ভাইসহ স্থানীয় প্রভাবশালী মহল জোর পূর্বক দখল করে নেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ ওই সমিতির নারী সদস্যদের। ঘটনার প্রতিবাদে শুক্রবার বেলা ১২ টায় কালামৃধা বাজারের ওই জায়গায় মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছে সমিতির অসহায় নারী সদস্যরা।

ভুক্তভোগী নারী সদস্যরা জানায়, ২০০২ সালে ১৫০ জন অসহায় নারী নিয়ে দক্ষিন কালামৃধা মহিলা উন্নয়ন সমিতি গঠন করার পরে ২০০৩ সাল থেকে বাজারের ১৩৪ নং মৌজার, ৩৪৪ খতিয়ানের ৫৬১ দাগের ২০ শতাংশ খাস জমি অসহায় নারীদের কর্মসংস্থান ও আর্থিক সচ্ছলতার জন্য বরাদ্দ দেয় তৎকালীন সময়ের সরকার। বিভিন্ন সময়ে মহিলা উন্নয়ন সমিতির সরকারী বরাদ্দের জায়গার প্রতি স্থানীয় প্রভাবশালীরা তাদের লোলুপ দৃষ্টি দিয়ে আসছিল। স্থানীয় ভুমি অফিসের যোগাযোগ রক্ষা করে সমিতির নামে লিজকৃত সেই জায়গা দখলের চেষ্টা করছে স্থানীয় প্রভাবশালী একটি মহল। যাদের সামনে দাড়িয়ে প্রতিবাদ করার সাহস বা কোন সামর্থ্য আজ তাদের নেই। এজন্য অসহায় নারীদের জীবনের কথা বিশেষভাবে বিবেচনা করে সরকারি বররাদ্দকৃত জমির দখল বুঝে পেতে প্রশাসন ও সরকারের কাছে তারা জোড় দাবী জানিয়েছেন।

সমিতির সভানেত্রী সালমা আক্তার তাঁর বক্তব্যে বলেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমির কার্যালয় থেকে নোটিশ পাইয়ে সেখানে আমরা হাজির হয়ে সকল কাগজপত্র দেখালেও দখলদারদের কেউই কয়েক দফায় সেখানে হাজির হয়নি। তাঁরপরেও আমাদের বরাদ্দকৃত জায়গায় দোকান তুলে, ভাড়া দিচ্ছে, বিক্রি করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

সাধারণ সম্পাদক মিসেস মমতা খাতুন বলেন, সমিতির নারীদের অসহায় পেয়ে বদিউজ্জামান হাওলাদার, আমীর মোড়ল গংরা সমিতির ২০ শতাংশ জমি দখল করে দোকান ঘর তুলেছে। তিনি বলেন, সর্বশেষ ২০১৮ সালে বাৎসরিক সরকারী কর জমা দিয়ে বরাদ্দের কাগজ আমাদের নামে। কিন্ত ২০১৯ সালের লিজের টাকা জমা দিতে গেলে ভুমি অফিস থেকে সময় ক্ষেপন করে আসছে।

অভিযোগের বিষয়ে দখলদারদের অন্যতম আমীর মোড়লের কাছে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি দাবী করেন তার বোন সমিতির সাবেক সভানেত্রী জাহানারা বেগম তাকে এই জমি দিয়েছেন। সমিতির নামে লিজ নেয়া জমি, কেউ কাউকে দিতে পারে কিনা এমন প্রশ্ন করা হলে আমীর মোড়ল উপস্থিত সাংবাদিক ও গ্রামবাসীর কোন উত্তর দিতে পারেন নি। এমনকি এই জমির কোন কাগজপত্র তার কাছে আছে কিনা জানতে চাইলে কোন কাগজপত্র নেই বলেও জানান তিনি।

এই বিষয়ে উপজেলার সহকারী কমিশনার(ভুমি) মো. আল আমিন জানান, জমিটি দক্ষিন কালামৃধার মহিলা উন্নয়ন সমিতির নামে বররাদ্দ দেওয়া ছিল। এই সমিতির সাবেক সভানেত্রী জাহানারা বেগম এলাকার বিভিন্নজনকে স্টাম্পের মাধ্যমে ওই জমি দিয়েছেন এবং কয়েকটি স্টাম্প আমাদের কাছে আসছে। বরাদ্দকৃত জমি হস্তান্তর করার সুযোগ নেই বলে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, এসব কারনে মহিলা উন্নয়ন সমিতি শর্ত ভঙ্গ করেছেন বিধায়, বরাদ্দ নবায়ন করা হয়নি। আবার দুটি পক্ষই নতুন করে বরাদ্দের আবেদন করেছে। ভাঙা ভূমি অফিস থেকে বিষয়টি সমাধানের জন্য কয়েকবার তাদের নোটিশ করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, তারা যদি নিজেরা মিমাংসা করে আসে তাহলে যৌথভাবে লিজ দেয়া যেতে পারে। সেক্ষেত্রে মহিলা সমিতির বিষয়টি ভূমি অফিস থেকে মানবিক ভাবে দেখা হবে বলে জানান তিনি।

print

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here