• রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
চীনের সাবেক প্রেসিডেন্ট জেমিনের মৃত্যুতে শোক প্রধানমন্ত্রীর মোবাইলে সরাসরি রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবেন প্রবাসীরা ১০ টাকার টিকিট কেটে চোখ দেখালেন প্রধানমন্ত্রী ভাঙ্গায় নারীর সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন ভাবনা সেমিনার অনুষ্ঠিত যুক্তরাষ্ট্রে ৩ ফুটবলারকে গুলি করে হত্যা ভাঙ্গায় আরও ৪০টি ভূমিহীন পরিবারের মাঝে ঘর বিতরণ করেছে উপজেলা প্রশাসন জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদের সদস্য হলো বাংলাদেশ ভাঙ্গা মাদানী নগর কবর স্থান পরিচালনার নতুন কমিটি গঠন অধ্যক্ষ আবু ইউসুফ মৃধা ভাঙ্গায় শ্রেষ্ঠ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধান নির্বাচিত নেতাকর্মীদের ওপর হামলা, পুলিশকে দুষছেন বিএনপির আমান

শিবচর ও জাজিরায় ‘শেখ হাসিনা তাঁত পল্লী’র স্থান পরিবর্তন

Reporter Name / ৯১৯ Time View
Update : বুধবার, ২৭ মার্চ, ২০১৯

শিবচর (মাদারীপুর) সংবাদদাতা ::

অনিয়মরোধে মাদারীপুরের শিবচর ও শরীয়তপুরের জাজিরায় নির্মিত হতে যাওয়া শেখ হাসিনা তাঁতপল্লীর পূর্বনির্ধারিত স্থান পরিবর্তন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী এমপি।

চিফ হুইপ মঙ্গলবার দুপুরে প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন। এ সময় চিফ হুইপ ভবিষ্যতে অনিয়ম হলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ারও ঘোষণা দেন।

এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি মুনির চৌধুরীসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এ দিন তিনি কাঁঠালবাড়ি ইউনিয়নের পদ্মা নদীভাঙনকবলিত ৯০ পরিবারের মাঝে গুচ্ছগ্রামের নতুন ঘরের চাবি তুলে দেন।

চিফ হুইপ বলেন, শেখ হাসিনা তাঁতপল্লীর নির্ধারিত স্থানে অবৈধ স্থাপনা নিয়ে টিভি, পত্রিকাসহ বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রচারিত নিউজ দেখে ও তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে দেখা গেছে এখানে ভালো কিছু হচ্ছে না। আমাদের নির্দেশনায় মাদারীপুরের প্রশাসন অবৈধ সকল স্থাপনা ভেঙে ফেলেছে। কিন্তু শরীয়তপুরের প্রশাসন কোনো কার্যক্রম গ্রহণ করেনি।

গত ২৪ মার্চ পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সভায় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মীর্জা আজম, সংলগ্ন সংসদ সদস্য ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা সবাই একমত হয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যে সকল এলাকায় অবৈধভাবে ঘর-বাড়ি, গাছপালাসহ স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে সে সকল এলাকা এই প্রকল্প থেকে বাদ দেওয়া হবে।

অপর দিকে দুই জেলায় এমন একটি প্রকল্প করতে গেলে শুধু এই অনিয়মই নয় ভবিষ্যতে আরো কিছু সমস্যা হবে। যেমন আইনশৃঙ্খলার অবনতি হলে নিয়ন্ত্রণে জটিলতা সৃষ্টি হবে। তাই সংসদীয় কমিটি, মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা ও প্রশাসনিক কর্মকর্তারা সবাই একই সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে আমরা শেখ হাসিনা তাঁতপল্লী একই উপজেলায় করব।

এ জন্য মাদারীপুরের শিবচরের কুতুবপুর এলাকায় জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। এরই মধ্যে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আজ আমরা জায়গা দেখে গেলাম। আমাদের পছন্দ হয়েছে। দু-এক দিনের মধ্যেই একটি টিম আসবে এখানে। তাদের পছন্দ হলে আগামী দুই মাসের মধ্যেই আমরা কাজ শুরু করতে পারব।

এ সময় মাদারীপুর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সজল নূর, শিবচর পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উত্তম পাঠক, সহকারী পুলিশ সুপার সোনাহর আলী, নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান সামসুদ্দিন খান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল নোমান, নবনির্বাচিত উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বি এম আতাউর রহমান আতাহার, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আ. লতিফ মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. সেলিম, পৌর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জেল হোসেন তোতা খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ‘শেখ হাসিনা তাঁতপল্লী’র ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এ প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৯ শ ১১ কোটি টাকা। প্রকল্পটির জন্য জেলার শিবচর উপজেলার কুতুবপুরে ৬০ একর ও শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবায় ৪৮ একর জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছিল।

ভিত্তিপ্রস্তরের পর সরকারের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিতে ওই জমির মালিক ও এক শ্রেণির দালাল শত শত ঘরসহ স্থাপনা নির্মাণ ও গাছ লাগানো শুরু করে। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর গত ২৬ জানুয়ারি চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করলে জেলার শিবচরে অবৈধ স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করে প্রশাসন। তবে শরীয়তপুরে কোনো অভিযান এখন পর্যন্ত চালায়নি প্রশাসন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও সংবাদ