• শনিবার, ১২ জুন ২০২১, ০৫:০১ অপরাহ্ন

ভাঙ্গায় সংঘাত ছেড়ে পুলিশের কাছে দেশীয় অস্ত্র জমা দিল গ্রামবাসী

Reporter Name / ১১৯ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১

লিড-নিউজ দক্ষিণাঞ্চল অফিস :: ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনওর হস্তক্ষেপে অবশেষে দীর্ঘদিনের সংঘাত-সংঘর্ষের পথ ছেড়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার ঘারুয়া ইউনিয়নের আধিপত্য বিস্তারকারী দুটি গ্রামের শত শত জনতা পুলিশের কাছে জমা দিয়েছে বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র।
বুধবার বিকেলে উপজেলার ঘারুয়া ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে রাজেশরদি ও হাজরাকান্দা গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ সঙ্ঘাত ছেড়ে শান্তির প্রতিশ্রুতিতে ঢাল,কাতরা,টেটা, সরকি, বল্লমসহ বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র তারা পুলিশের কাছে জমা দেন।
ঘারুয়া ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শফি উদ্দিন মোল্লার সভাপতিত্বে এ উপলক্ষে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম হাবিবুর রহমান, বিশেষ অতিথি উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজিম উদ্দিন,সহকারী কমিশনার (ভূমি) সজিব আহমেদ,থানা অফিসার ইনচার্জ লুতফর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, উপজেলার ঘারুয়া ইউনিয়নের উল্লেখিত দুটি গ্রামের বিবদমান চারটি গ্রুপের চারজন নেতার নেতৃত্বে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সময়ে অতি তুচ্ছ ঘটনায় দেশীয় অস্ত্র নিয়ে প্রতিপক্ষের উপর তারা ঝাঁপিয়ে রক্তস্নাত যুদ্ধের মত ঘটনার সৃষ্ট করতেন। তাদের কারনে দীর্ঘদিন ধরে এলাকার অসহায় ও সাধারণ মানুষের জানমালের কোন নিরাপত্তা ছিল না। এসব কারনে সাধারণ জনগণের মুখে কোন হাঁসি ফুটে উঠতে পারে নি। এলাকার প্রশাসন ও অসহায়ের মত হয়ে পড়েছিল দাঙ্গাফ্যাসাদ সামাল দিতে। কারন রাজেশরদি ও হাজরাকান্দা গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ কখন কি করে সঙ্ঘাতে জড়িয়ে পড়ছে একমাত্র সংঘাতের সাথে জড়িয়ে পড়া মানুষ ছাড়া অন্য কেউ বোঝার উপয়ায় ছিল না বলে এমন ভাষ্য এলাকার সাধারণ মানুষের।

সর্বশেষ চলতি সপ্তাহে দুটি সংঘাতের ঘটনায় ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন এর দৃষ্টি আসতেই তিনি উপজেলা বিশেষ আইনশৃঙ্খলা সভায় দাঙ্গা ফ্যাসাদে জড়িতদের তালিকা করে আইনের আওতায় আনার নির্দেশ দেন পুলিশকে। পুলিশ বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখতে শুরু করতেই রাজেশরদি ও হাজরাকান্দা ও তাদের অধীনের অন্যান্য গ্রামের লোকজন এমপির কাছে প্রতিশ্রুতি দেন, এখন থেকে গ্রামের মানুষের শান্তি ও এলাকার শৃঙ্খলার স্বার্থে নিজেদের মধ্যে সকল ঘটনার অবসান ঘটিয়ে এক নতুন ঘারুয়া ইউনিয়ন তাকে উপহার দিবেন। অবশেষে পক্ষ-প্রতিপক্ষর গ্রাম্য নেতাদের সমন্বয়ে ভাঙ্গা উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন ও ভাঙ্গা থানা পুলিশের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ঘারুয়ার বিবদমান দুটি গ্রামের পুঞ্জীভূত কোন্দল অবসানে বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র জমা দেন গ্রামবাসী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category