• শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৫২ পূর্বাহ্ন
Headline
‘রুদ্ধদ্বার’বৈঠকে তৃতীয় দিনে বিএনপি ইভ্যালির চেয়ারম্যান-সিইওর বাসায় র‌্যাবের অভিযান জিয়ার লাশের নামে বাক্স সাজিয়ে-গুছিয়ে আনা হয়েছিল: প্রধানমন্ত্রী গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা আনার দাবি সাংবাদিকদেরই : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী অনলাইন সংবাদপোর্টাল নিবন্ধন চলমান প্রক্রিয়া, হাইকোর্টের নির্দেশনা শৃঙ্খলায় সহায়ক : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী রোববার থেকে ৪ ঘণ্টা সিএনজি স্টেশন বন্ধ অসত্য উপস্থাপন করা বিএনপির রেওয়াজে পরিণত হয়েছে: কাদের ইভ্যালির চেয়ারম্যান ও সিইওর বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলা কেজি প্রতি দইয়ে ৩০০ গ্রাম কম! লাখ টাকা জরিমানা ভাঙ্গায় মাঠ পর্যায়ে কার্যকর ও জবাদিহিমূলক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভাবমূর্তি নিয়ে অসন্তুষ্ট এপিইউবি

Reporter Name / ৯৯ Time View
Update : শনিবার, ৭ আগস্ট, ২০২১

দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভাবমূর্তি নিয়ে অসন্তুষ্ট বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি (এপিইউবি)। সেজন্য উদ্যোক্তাদের সংগঠনটির পক্ষ থেকে সম্প্রতি দেশে কর্মরত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অনিয়ম-দুর্নীতি বিষয়ে সতর্ক করে চিঠি পাঠানো হয়েছে। কারণ অনুমোদনহীন কোর্স ও ক্যাম্পাস পরিচালনা, আসনের অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি, ট্রাস্ট নিয়ে দ্বন্দ্বসহ বিভিন্ন অভিযোগ দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ক্ষেত্রে নিত্যনৈমিত্তিক হয়ে দাঁড়িয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) থেকে ওসব অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধে দফায় দফায় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে তার কোনো প্রতিফলন ঘটছে না। এপিইউবি সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, যেসব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উত্থাপিত হয়েছে এপিইউবির পক্ষ থেকে তাদের কাছে আলাদা করে ব্যাখ্যা জানতে চাওয়া হবে। আর ওই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে বেশ কয়েকটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে চিঠি দেয়ার প্রস্তুতি চলছে। তবে ইতিমধ্যে দেশের সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের (বিওটি) চেয়ারম্যান বরাবর এপিইউবি চিঠি পাঠিয়েছে। কারণ বেশকিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে অনিয়ম, অনুমোদনহীন কোর্স ও ক্যাম্পাস পরিচালনা, বিধিবহির্ভূতভাবে শিক্ষার্থী ভর্তি, ট্রাস্টি বোর্ডের দ্বন্দ্বসহ উত্থাপিত অভিযোগের বিষয়ে সমিতি বিশেষভাবে উদ্বিগ্ন। গণমাধ্যমে প্রায়ই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আইন ও নীতিমালা অনুযায়ী কার্যক্রম পরিচালনা না করার সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় জনমনে নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টি হচ্ছে। পাশাপাশি উচ্চশিক্ষাসংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছেও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভাবমূর্তি প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছে।
সূত্র জানায়, বেসরকারি উচ্চশিক্ষা উদ্যোক্তাদের সমিতির পক্ষ থেকে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের (বিওটি) চেয়ারম্যানকে জানানো হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট সব মহলের সঙ্গে আলোচনা করে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নিয়েছে সমিতি। সেজন্য কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রচলিত আইন, বিধি, নীতিমালায় কোনো ধরনের সংশোধন প্রয়োজন হলে সে বিষয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে জরুরি ভিত্তিতে মতামত পাঠাতে বলেছে এপিইউবি। তাছাড়া আগামী দিনেও সবার সহযোগিতায় সব ধরনের সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সমিতি ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করা হয় । তবে সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর দায়িত্বশীল ভূমিকা একান্ত অপরিহার্য। সমিতি আশা করে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে দেশের প্রচলিত আইন ও নীতিমালা যথাযথভাবে অনুসরণ করবে।
এদিকে এপিইউবি’র উদ্যোগকে ইতিবাচকভাবে দেখছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন। এ প্রসঙ্গে কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ জানান, দেশের বেসরকারি খাতের উচ্চশিক্ষায় গত এক দশকে ব্যাপক হারে প্রসার ঘটেছে। তবে ওই প্রসার অনেকাংশেই সংখ্যায় সীমাবদ্ধ ছিল। এখন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষা ও গবেষণার মানে অনেক বেশি জোর দেয়া হচ্ছে। তবে সেক্ষেত্রে বেশকিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা অনিয়ম প্রতিবন্ধক হিসেবে কাজ করছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আইন না মানলে সুশাসন প্রতিষ্ঠা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। ইউজিসি অনেক সময় শিক্ষার্থীদের কথা ভেবে তাদের অনেক ছাড় দিয়ে থাকে। কিন্তু অনেকেই তার সুযোগ নিতে চায়।
অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে এপিইউবি চেয়ারম্যান শেখ কবির হোসেন জানান, নভেল করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খাত এমনিতেই বড় সংকটে রয়েছে। পাশাপাশি এ খাত অনিয়ম-দুর্নীতির ঘটনায় ভাবমূর্তির সংকটে পড়ছে। সেজন্যই সমিতির পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে সাবধান করে দিয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। সমিতি চায় সব বিশ্ববিদ্যালয় আইন ও ইউজিসির নির্দেশনা মেনে চলুক। বিশেষ করে অনুমোদনহীনভাবে শিক্ষার্থী ভর্তি, অবৈধভাবে প্রোগ্রাম চালানোর মতো অনিয়মগুলো বন্ধ করা জরুরি হয়ে পড়েছে। কারণ কিছু বিশ্ববিদ্যালয় বিষয়ে সাম্প্রতিক সময়ে দুর্নীতির যেসব খবর বের হয়েছে, সেগুলোর বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বক্তব্য এপিইউবি’কে জানাতে বলা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তা জানালে সমিতির পক্ষ থেকে ওই আলোকে জবাব দেয়া হবে। তাছাড়া একটি বিশ্ববিদ্যালয় যখন কোনো অনিয়ম করে, তখন এটা গোটা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খাতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। সেজন্য ওই বিষয়গুলোকে এখন থেকে গুরুত্বসহকারে দেখা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category